মাটির স্পর্শ ছাড়াই সম্পূর্ণ শূন্যে ভাসা এই মসজিদ

মসজিদ হল আল্লাহর ঘর । পবিত্র স্থান। ভবনের দিক থেকে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ভবন বলা হয় দুবাইয়ের বুর্জ আল খলিফাকে। যার উচ্চতা ৮২৮ মিটার। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে চীনের সাংহাই টাওয়ার, যার উচ্চতা ৬৩২ মিটার। তৃতীয় স্থানেই রয়েছে মক্কা ক্লক টাওয়ার, যার উচ্চতা ৬০১ মিটার।

এবার আকাশে ঝুলন্ত বিল্ডিং বানানোর স্বপ্ন দেখছে দুবাই। যা কোনো একটি গ্রহ থেকে ঝুলতে থাকবে। নিউ ইয়র্কের ক্লাউডস আর্কিটেকচার নামে একটি সংস্থা এই বিল্ডিং তৈরির ধারণা দিয়েছে। ভবনটির নাম ঠিক করা হয়েছে এনালেমা। মাটির স্পর্শ ছাড়াই সম্পূর্ণ শূন্যে ভাসা এই মসজিদ নিয়ে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা। ভবনটি দেখতে কেমন হবে। এতে যাতায়াতের ব্যবস্থা কী থাকবে ইত্যাদি। (খালিজ টাইমস) ঠিক এই সময় বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু মসজিদ নির্মাণ করছে সৌদি আরব। ইসলামের পবিত্র ভূমি সৌদি আরবের মক্কায় নির্মাণ করা হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ঝুলন্ত মসজিদ। পবিত্র কাবা শরিফের পাশেই এই সুউচ্চ মসজিদের নির্মাণকাজের দায়িত্ব পেয়েছে সৌদি আরবে স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান মক্কা রিয়েল এস্টেট কম্পানি।

গত ১২ অক্টোবর ২০১৯ কম্পানির পরিচালক আনাস সালেহ সাইরাফি মসজিদের নির্মাণকাজ সম্পর্কিত তথ্য দিতে গিয়ে বলেন, মসজিদটির উচ্চতা হবে ১৬১ মিটার। সাধারণ বিল্ডিংয়ের সঙ্গে মেলাতে গেলে যার উচ্চতা হবে ৫৩তলা বিল্ডিংয়ের সমান।

যদিও মরক্কোর দ্বিতীয় হাসান মসজিদকে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু মসজিদ বলা হয়। কেননা তার উচ্চতা ২১০ মিটার। (ওয়ার্ল্ড এটলাস) কিন্তু এটি ঝুলন্ত মসজিদ নয়। বরং ভাসমান মসজিদ।

মূলত পবিত্র কাবাসংলগ্ন দুটি জোড়া টাওয়ারের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করে বানানো হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু এই ঝুলন্ত মসজিদটি। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে জানা যায়, সেই টাওয়ারের নাম জাবালে ওমর টাওয়ার। এখান থেকে মুসল্লিরা পবিত্র কাবা শরিফের পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের দৃশ্য সরাসরি দেখতে পাবেন। পাশাপাশি মসজিদের ডিজিটাল সাউন্ড সিস্টেমের সমন্বয় করা হবে পবিত্র কাবা শরিফের সঙ্গে। মসজিদটির আয়তন হবে ৪০০ বর্গমিটার। ফলে এখানে ২০০-এর অধিক মুসল্লি একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারবেন অনায়াসেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email
Facebook
Twitter
Instagram