ইসলাম আমাকে অনেক ভুল থেকে রক্ষা করেছে: এ.আর রহমান

অস্কার বিজয়ী প্রখ্যাত সঙ্গীতজ্ঞ এবং সুরকার এ. আর. রহমান তার জীবনের সকল সফলতার পেছনে ইসলামের অনুপ্রেরণা রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন। ইসলাম যেভাবে তার জীবনে সফলতা এনেছেন ঠিক একইভাবে কি অন্যদের জীবনেও আনতে সক্ষম কিনা, তাকে প্রায়শই এমন অনেক রকমের প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয় বলে তিনি জানিয়েছেন। সফল এই সঙ্গীতজ্ঞের জীবনী নিয়ে লিখা একটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

‘Notes of a Dream: The Authorized Biography of AR Rahman’ নামক এ. আর. রহমানের জীবনী গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচনী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘এটি ধর্মান্তরিত হওয়া বা না হওয়ার মত কোনো বিষয় নয়। আপনি কি সঠিক দিক খুঁজে পেয়েছেন কিনা, সঠিক দিকে চলতে পারছেন কিনা, এটি ঠিক এমন ব্যাপার।

সুতরাং আমার দিক থেকে আমি এবং আমার মা আধ্যাত্মিক শিক্ষকদের, সুফি শিক্ষকদের নিকট থেকে এমন কিছু পেয়েছি যা ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর এটিই সেই বিশ্বাস যা আমরা গ্রহণ করেছি এবং এখনো ধারণ করে চলেছি।’

এই বিখ্যাত সঙ্গীতজ্ঞ আরো বলেন, ‘ইসলাম আমাকে অনেক ভুল থেকে রক্ষা করেছে কারণ প্রত্যেক সালাতের পরে আমার মনে আসে যে, আমাকে পরবর্তী সালাতও আদায় করতে হবে আর এভাবেই আমি ক্ষতিকর আচরণ থেকে বেঁচে থাকি।’

তার জীবনী গ্রন্থ নিয়ে বলতে গিয়ে সঙ্গীতের এই জীবন্ত কিংবদন্তি বলেন, ‘আমার এই জীবনী গ্রন্থটি আমার জন্য একটি ভ্রমণের মত যা আমাকে আমার জীবনের এমন অনেক দিকে নিয়ে গিয়েছে যেগুলো আমি দীর্ঘ সময় ধরে বুকে লালন করেছি। কৃষ্ণা ত্রিলোকের (এ.আর. রহমানের জীবনী গ্রন্থের লেখক) সাথে আমার অর্থবহ আলোচনার ফলে আমার জীবনের অনেক ব্যক্তিগত এবং বৈচিত্র্যপূর্ণ দিক উঠে এসেছে যা ইতোপূর্বে অনেকেই জানতো না।’

সংগীত পরিচালক কিংবা সুরকার মানেই পর্দার পেছনের মানুষ—তাঁর সৃষ্ট সুর সফল হলে সেই গান নিয়ে মাতামাতি হবে। কিন্তু সংগীত পরিচালক কিংবা সুরকার হয়েও যে রীতিমতো প্রথম সারির তারকা হওয়া যায়, আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড হয়ে ওঠা যায়, তার প্রমাণ এ আর রহমান। ভারতের চলচ্চিত্র জগতে তিনি তারকাদের তারকা। নেপথ্যের মানুষ হয়েও এমন তারকাবাজি, এ আর রহমানের আগে কোনো ভারতীয় সংগীত পরিচালক করে দেখাতে পারেননি। অস্কার জেতার পর ভারত, বাংলাদেশসহ বিশ্ববাসীর হৃদয়ে সুরের মাধ্যমে নিজের জন্য পোক্ত আসন পেতে ফেলেছেন এ আর রহমান। তিনি হলিউডকে বাধ্য করেছেন বলিউড সম্পর্কে নাক সিঁটকানো মনোভাব ছাড়তে। তাঁকে দক্ষিণ ভারতের মানুষ ডাকে ‘দ্য মোৎ​সার্ট অব মাদ্রাজ’ নামে। রজনীকান্তের কাছাকাছি তাঁর জনপ্রিয়তা।
আজ ৬ জানুয়ারি সুরকার এ আর রহমানের জন্মদিন।
১৯৬৭ সালের ৬ জানুয়ারি বর্তমান এ আর রহমান জন্মেছিলেন এ এস দিলীপ কুমার নামে। বাবা তামিল সংগীত পরিচালক আর কে শেখর এবং মা গৃহবধূ কস্তুরি দেবী। বাবা সংগীত পরিচালক হলেও বাবার কাছ থেকে সংগীত শিক্ষা নেওয়ার খুব বেশি সুযোগ পাননি। কারণ, ১৯৭৬ সালে মাত্র নয় বছর বয়সে তিনি বাবাকে হারান। পিতার চিকিৎসার জন্য টাকার অভাব, তার যন্ত্রণা, পরিচিত মানুষের তীব্র উদাসীনতা এবং সামগ্রিকভাবে সমাজের উপেক্ষা দিলীপকে খুব কষ্ট দেয়। আরও কষ্ট দেয়, বিশেষত তাঁর পিতার মৃত্যুর দিনটি। ওই দিনেই তার বাবার সুরারোপিত প্রথম চলচ্চিত্রটি মুক্তি পেলেও তা তিনি দেখে যেতে পারেননি।

বাবা চলে যাওয়ার পর মাকে কেন্দ্র করেই বেড়ে উঠেছেন রহমান। বাবার দুটো কি-বোর্ড ভাড়া দিয়ে তখন সংসার চলত তাঁদের। ১১ বছর বয়স থেকেই বিভিন্ন অর্কেস্ট্রা দলের সঙ্গে কি-বোর্ড বাজাতে শুরু করেন রহমান। সেটা অবশ্য নেহাতই পেটের দায়ে। ভারতীয় একটি সংগীত মাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ আর রহমান বলেছিলেন, ১১ বছর বয়স থেকেই অনেকে আমাকে চিনত। আমার কাজ ছিল, ফরমায়েশি ফিল্মি গান কি-বোর্ডে বাজানো।’
বাবা যাওয়ার আগে পেছনে রেখে যান তাঁর স্ত্রী কস্তুরি (এখন করিমা বেগম) এবং তিন মেয়ে ও এক ছেলে। বোনেদের নাম কাঞ্চনা, তালাত ও ইশরাত। এই তিন বোন ও মায়ের সংসার চালানোর সব দায়িত্ব এসে পড়ে বালক দিলীপের ওপর। ১১ বছর বয়সে তিনি ইলিয়া রাজা সংগীত দলে যোগ দেন কিবোর্ড প্লেয়ার রূপে। ইতিমধ্যে তিনি গিটার বাজানো শেখেন। এভাবে এ আর রহমান চূড়ান্তভাবে গানের ভুবনে ঢোকেন। বিধবা মা’ই প্রেরণা দেন, যিনি চেয়েছিলেন ছেলে যেন প্রয়াত স্বামীর পদাঙ্ক অনুসরণ করে।
গানের ভুবনে ঢোকার ফলে এ আর রহমানের আনুষ্ঠানিক পড়াশোনা বন্ধ হয়ে যায়। যদিও তিনি খুব নামকরা দু’টি শিক্ষায়তন পদ্মশেষাদ্রী বাল ভবন এবং মাদ্রাজ ক্রিশ্চিয়ান কলেজে পড়ার সুযোগ পেয়েছিলেন তবুও এমভি বিশ্বনাথন, রাজকোটি, রমেশ নাইডুর অর্কেস্ট্রায় কর্মরত থাকেন। এই অর্কেস্ট্রার সঙ্গে তিনি বিশ্ব ভ্রমণে যান এবং জাকির হোসেন ও কুন্নাকুডি বিদ্যানাথনের সঙ্গে বাজনায় অংশ নেন। তার প্রতিভায় অনেকে আকৃষ্ট হন এবং তাকে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির ট্রিনিটি কলেজ অব মিউজিকে পড়াশোনার ব্যবস্থা করে দেন। এখানেই ওয়েস্টার্ন ক্ল্যাসিকাল মিউজিকে একটি ডিগ্রি আয়ত্ত করার পর তিনি ভারতে ফিরে যান।
১৯৮৮ সালে তিনি ও তার পুরো পরিবার ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। দিলীপ হয়ে যান এ আর রহমান।
গানের জন্যই বেঁচে থাকা: ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এ আর রহমান বলেন, ‘আমার জন্ম হয়েছে গানের জন্য। আমি গানের জন্যই বেঁচে আছি এবং শেষ পর্যন্ত গানের জন্যই বেঁচে থাকব।’
এবার শুনুন গানের ভুবনে তারকা হয়ে যাওয়ার গল্পটা। তখন ১৯৯২ সাল। তামিল পরিচালক মণিরত্নম একটি কফির বিজ্ঞাপনের জিঙ্গলসে সুর দিয়ে মাতিয়ে দেওয়া ২৫ বছর বয়সী ছেলেটিকে সুযোগ দিলেন তার ‘রোজা’ ছবির সংগীত পরিচালনার। তামিল ভাষায় তৈরি ছবিটি হিন্দিতে ডাব করা হয়েছিল। দুই ভাষাতেই রোজা’র সব কটি গান দারুণ হিট হয়। এর পর থেকে আর পেছনে তাকানো নয়, তার দেওয়া সুর কখনো ফ্লপ করেনি। জীবনের প্রথম ছবির জন্যই পেয়েছিলেন রজত কমল (জাতীয় পুরস্কার), আজ পর্যন্ত এই রেকর্ড অন্য কোনো সংগীত পরিচালকের নেই।
‘রোজা’ ছবিটি এবং এর গান সারা ভারতে সুপারহিট হওয়ার পরও চেন্নাই ছেড়ে বলিউডে আসার কোনো পরিকল্পনা করেননি তিনি। হিন্দি ভাষাটা বিশেষ বুঝতেন না। তাই ওই ভাষার সুর করতেও চাইতেন না। কিন্তু রামগোপাল ভার্মাও নাছোড়বান্দা। ‘রঙ্গিলা’র জন্য তারও রহমানকেই চাই। অনেক টালবাহানার পর রাজি হলেন রহমান। আর তার ক্যারিয়ারের একটা নতুন দিকও শুরু হলো। ‘রঙ্গিলা’ ১৯৯৫ সালে সুপারহিট হলো। রহমানের হিন্দি ভীতিও কাটল। এর পরের মোড় আসে ১৯৯৭ সালে। ভারতের স্বাধীনতা প্রাপ্তির ৫০ বছর উপলক্ষে ‘বন্দে মাতরম’-এ নতুন করে সুর দেন রহমান। ‘মা তুঝে সালাম’ গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছিলেন, মিউজিক ভিডিওতে দেখা যায় তাঁকে। সেখান থেকে তার ক্যারিয়ারের আরও এক গুরুত্বপূর্ণ মোড়। দেশের গণ্ডি পেরিয়ে হলিউডেও পৌঁছে যান এ আর রহমান। জয় করেন অস্কারও।
পারিবারিকভাবেই স্ত্রী সায়রা বানুর সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়েছিল। তাঁর তিন ছেলেমেয়ে খাদিজা, রহিমা এবং আমিন।
তাঁর জন্মদিনে জেনে নিন কিছু অজানা তথ্য
১) এ আর রহমান আসলে সুরকার নয়, কৈশোরে হতে চেয়েছিলেন ইলেকট্রনিকস অথবা কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার। এ আর রহমান তার স্মৃতিচারণায় বলেন, মিউজিকের জন্য ততটা পাগল ছিলাম না যতটা ছিলাম টেকনোলজির প্রতি। ঘটনাচক্রে মিউজিক ও টেকনোলজি উভয়ের সম্মিলন হয় সিনথেসাইজারের মাধ্যমে।
২) কানাডার মারখামের একটি রাস্তার নামকরণ করা হয়েছে তাঁর নামে ২০১৩ সালের নভেম্বর মাস থেকে।
৩) আজ শুধু এ আর রহমানেরই জন্মদিন নয়, তাঁর ছেলে আমিনেরও জন্মদিন!
৪) শুধু ‘স্লামডগ মিলিয়নিয়ার’ নয়, এ আর রহমান সুরকার করেছেন হলিউডের জনপ্রিয় মুভি ‘১২৭ আওয়ারস’ এবং ‘লর্ড অব ওয়ার’-এ।
৫) ২০০০ সালে এ আর রহমানেরই জিঙ্গেলে একটি ফরাসি বিজ্ঞাপনে দেখা গিয়েছিল জিনেদিন জিদানকেও!

“আমাদের প্রতেক্যের জীবনেই বিবর্তনের নিজস্ব ধারা আছে। চলার পথে আমাদের সবাইকে নানা ধরণের পরীক্ষার মধ্য দিয়ে যেতে হয় যা প্রচণ্ড চ্যালেঞ্জিং এবং অন্যদের থেকে একদম আলাদা। কিন্তু তারপরও সবার মধ্যে কিছু সাধারণ মিল থেকেই যায়। পরস্পরের কাছ থেকে অভিজ্ঞতা নিয়েও আমরা অনেক কিছু শিখতে পারি। দিনশেষে, জীবনযাত্রায় আমরা সবাই একই লক্ষ্যের দিকেই তো আগাই।”

কথাগুলো মাদ্রাজের মোৎসার্টখ্যাত ভারতীয় সুরকার, গায়ক, গীতিকার, সঙ্গীত প্রযোজক, নানাবিধ যন্ত্রবাদক এবং সর্বোপরি মানবপ্রেমিক এ আর রহমানের। একনামে বর্তমান ভারতবর্ষের সেরা সঙ্গীতজ্ঞ হিসেবে পরিচিত তিনি।

১৯৬৭ সালের ৬ জানুয়ারি মাদ্রাজের এক সঙ্গীতজ্ঞ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন এ এস দিলীপ কুমার। মাদ্রাজের নাম এখন চেন্নাই, এ এস দিলীপ কুমারের নাম এ আর রহমান। পূর্ণনাম ‘আল্লাহ রাখা রহমান’। নাম পরিবর্তনের সেই কাহিনীতে পরে আসছি। আগে দেখে আসা যাক কেমন ছিল বিখ্যাত এই সুরকারের শৈশবকাল।

দিলীপ কুমারের বাবা আর কে শেখর ছিলেন তামিল এবং মালায়ালাম সঙ্গীত জগতের নামকরা সুরকার। ছোটবেলায় বাবার হাত ধরে স্টুডিওতে ঘুরতে যেতেন দিলীপ। হয়তো শৈশবের সেই দিনগুলোই তার মনে সঙ্গীতের নেশা ধরিয়ে দিয়েছিল, যার কারণে গানই এখন রহমানের একমাত্র ধ্যান-জ্ঞান। ৪ বছর বয়সেই তিনি পিয়ানো বাজানো শিখে গিয়েছিলেন।

ছোট্ট দিলীপের ঝোঁক ছিল ইলেক্ট্রনিকস আর কম্পিউটারের প্রতি। তবে বাবা যখন একটি মিউজিক সিনথেসাইজার কিনে আনলেন তখন সঙ্গীতের প্রতিও দিলীপের একটা প্যাশন জন্ম নেয়। সেই প্যাশন নিয়ে মাতোয়ারা ৯ বছরের দিলীপকে ছেড়ে পরপারে পাড়ি দেন শেখর। স্বপ্নের ঘোর থেকে বের হয়ে কঠিন বাস্তবতার সম্মুখীন হয় দিলীপ ও তার পরিবার।বাবার মৃত্যুর পর ৯ বছরের বালক দিলীপের উপর পরিবারের আর্থিক দায়ভার নেমে আসে। বাবার সঙ্গীত যন্ত্রগুলো ভাড়া দিয়ে কোনোমতে দিন কাটছিল তাদের। মা কারীমার (পূর্বনাম কস্তূরী) তত্ত্বাবধায়নেই বেড়ে উঠছিলেন তিনি। ১১ বছর বয়সে কিবোর্ড বাদক হিসেবে লায়ারাজার দলে যোগ দেন তিনি। কাজকর্মের ভিড়ে স্কুল থেকে ঝরে পড়া দিলীপ বিভিন্ন অর্কেস্ট্রা দলের সাথে বিশ্বভ্রমণে বেরিয়ে পড়েন।ছোটবেলার বন্ধু শিভামানি, জন অ্যান্থনি, সুরেশ পিটার, জোজো এবং রাজার সাথে ‘রুটস’ নামের একটি ব্যান্ড দল গড়ে তোলেন দিলীপ। চেন্নাইভিত্তিক রক ব্যান্ড দলটির নাম দেয়া হয় ‘নেমেসিস অ্যাভিনিউ’। কিবোর্ড, পিয়ানো, সিনথেসাইজার, হারমোনিয়াম এবং গিটারের উপর ছিল তার একক আধিপত্য। ছোটবেলার সঙ্গী সিনথেসাইজারের প্রতি তার ছিল বিশেষ আকর্ষণ। তার মতে সিনথেসাইজার হলো ‘সঙ্গীত এবং প্রযুক্তির আদর্শ সমন্বয়’।

সঙ্গীতে দিলীপের হাতেখড়ি হয় ওস্তাদ ধনরাজের হাত ধরে। ১১ বছর বয়সে বাবার কাছের বন্ধু প্রখ্যাত মালায়ালাম সুরকার এম কে আরজুনানের অর্কেস্ট্রা দলে বাদক হিসেবে যোগ দেন তিনি। বেশ দ্রুতই ভোকাল, গিটার, পারকিউশন, ড্রাম, হারপেজ্জী, অটমিয়াম, ফিঙ্গারবোর্ড, কীবোর্ড, পিয়ানো, অ্যাকর্ডিয়ন, গবলেট, ড্রাম, কনসার্ট হার্প প্রভৃতিতে দখল আনতে থাকেন তিনি। তার প্রতিভায় মুগ্ধ হয়ে এম এস বিশ্বনাথান, রামেশ নাইড়ু, রাজ কোটির মতো নামকরা সুরকাররাও দিলীপকে তাদের সাথে কাজ করার সুযোগ করে দেন।

জাকির হুসেইন, কুন্নাকুড়ি বাইদ্যোনাথন এবং এল শঙ্করের সাথে বিশ্বভ্রমণে বেরিয়ে পড়েন তিনি। সেই সময়েই অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘ট্রিনিটি কলেজ অফ মিউজিকে’ স্কলারশিপ পান দিলীপ। পরবর্তীতে মাদ্রাজে পড়ালেখা করার সময় স্থানীয় একটি স্কুল থেকে ‘ওয়েস্টার্ন ক্লাসিক্যাল মিউজিকে’ ডিপ্লোমা করেন তিনি।১৯৮৪ সালে দিলীপের ছোট বোন মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়ে। এক বন্ধুর মাধ্যমে দিলীপ প্রথমবারের মতো পরিচিত হন ‘কাদিরী ইসলামের’ সাথে। পরিবারের নানাবিধ সমস্যা থেকে মুক্তি পেয়ে ইসলামের প্রতি বিশ্বাস দৃঢ় হয় তার। ১৯৮৯ সালে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে ধর্মান্তরিত হন ২৩ বছরের দিলীপ। ধর্মের সাথে সাথে নামও পরিবর্তিত হয়ে দিলীপ কুমার থেকে হয়ে যায় আল্লাহ রাখা রহমান, সংক্ষেপে এ আর রহমান।

শুরুর দিকে রহমান ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে ডকুমেন্টারির জন্য মিউজিক কম্পোজ করতেন। ১৯৮৭ সালে তিনি ঝুঁকে পড়েন বিজ্ঞাপনের দিকে। বছর পাঁচেকের মধ্যে তিনি ৩০০টিরও বেশি জিঙ্গেল কম্পোজ করেন। তার সুর করা জিঙ্গেলগুলোর মধ্যে কয়েকটি বেশ বিখ্যাত ছিল, যেমন টাইটান ওয়াচের জিঙ্গেল। এখানে তিনি মোৎসার্টের ২৫ নং সিম্ফনি ব্যাবহার করেন। সাম্প্রতিক সময়েও রহমানের কম্পোজ করা এয়ারটেলের জিঙ্গেলটি দারুণ জনপ্রিয়।

১৯৮৯ সালে ‘পাঞ্চাথান রেকর্ড ইন’ নামের ছোট একটি স্টুডিওর মাধ্যমে নিজস্ব সঙ্গীত জগতের সূচনা করেন তিনি। পরবর্তীতে এটি ভারতের অন্যতম সেরা সাউন্ড রেকর্ডিং স্টুডিও হিসেবে নাম করে। এটি এশিয়ার সবচেয়ে অত্যাধুনিক স্টুডিও কিনা তা নিয়েও জোর বিতর্ক চালু রয়েছে।

অ্যাডভার্টাইজিং অ্যাওয়ার্ডের এক অনুষ্ঠানে রহমানের সাথে দেখা হয় ভারতের অন্যতম সেরা পরিচালক মনি রত্নমের। রহমান বেশ কিছু সুরের নমুনা দেখান মনিকে। মনি সেই সুরগুলো এতটাই পছন্দ করেন যে সঙ্গে সঙ্গে রহমানকে তার পরবর্তী তামিল ছবি ‘রোজা’তে সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে নিয়োগ দেন। এই সিনেমাটি তাকে দেশজোড়া খ্যাতি, সাফল্য আর পরিচিতি এনে দেয়। ১৯৯২ সালের সেই দিনটি থেকে চলচ্চিত্র কেন্দ্রীক সঙ্গীত জগতে পদচারণা শুরু করেন রহমান। বাকিটা, যেমনটা বলা হয়, ইতিহাস!১৯৯৫ সালে রহমান তার প্রথম হিন্দি ভাষার সিনেমা ‘রঙ্গিলা’য় সঙ্গীত পরিচালনা করেন। ইতোমধ্যে তামিল সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির, যা কলিউড নামেই বেশি পরিচিত, সর্বত্র চলছিল এ আর রহমানের জয়জয়কার। কলিউড কাঁপিয়ে বলিউডেও তিনি প্রবেশ করেন বীরদর্পে। ‘রঙ্গিলা’র দুর্দান্ত সাফল্য বলিউডের মাটিতে সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে রহমানের শক্ত আসন তৈরি করে দেয়। যার ফলশ্রুতিতে একে একে তিনি ‘বোম্বে’ (১৯৯৫), ‘দিল সে’ (১৯৯৮), ‘তাল’ (১৯৯৯), ‘জুবাইদা’ (২০০১), ‘লাগান’ (২০০১) এর মতো বিখ্যাত সব চলচ্চিত্রে সঙ্গীত পরিচালনা করে টপ চার্ট সাউন্ডট্র্যাক অ্যালবামে নিজের অবস্থান পাকাপোক্ত করে নেন। এর মধ্যে ‘লাগান’ প্রথম ভারতীয় চলচ্চিত্র হিসেবে অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ড বা অস্কারে মনোনয়ন পায়। বিশ্বব্যাপী রহমানের অ্যালবাম ১০০ মিলিয়নেরও বেশি কপি বিক্রি হয়েছে।

কর্ণাটক সঙ্গীত, ওয়েস্টার্ন ক্লাসিক্যাল, হিন্দুস্তানি সঙ্গীত, নুসরাত ফতেহ আলী খানের প্রভাবসমৃদ্ধ কাওয়ালি স্টাইল- সঙ্গীত পরিচালনার সময় এগুলোই বেশি পছন্দ করেন এ আর রহমান। ব্রিটিশ সুরকার অ্যান্ড্রু লয়েড ওয়েবার রহমানের সুর করা কিছু মিউজিক শুনে তাকে একটি মিউজিক্যাল ড্রামা তৈরি করার প্রস্তাব করেন। গীতিকার ডন ব্ল্যাক ও এ আর রহমান মিলে ‘বোম্বে ড্রিমস’ নামের একটি বলিউডি চলচ্চিত্রের সমালোচনামূলক ও বিদ্রূপাত্মক মিউজিক্যাল ড্রামা রচনা করেন। ২০০২ সালে লন্ডনের ওয়েস্ট এন্ডে খুব বেশি প্রচারণা ছাড়াই মিউজিক্যাল ড্রামাটি মুক্তি দেয়া হয়। ইতোমধ্যে লন্ডনে বসবাসরত ভারতীয়দের একটি বড় অংশের মধ্যে তুমুল জনপ্রিয় ছিলেন রহমান। কাজেই হু-হু করে টিকেট বিক্রি হতে থাকে এবং এই শোয়ের সাফল্য দেখে ২০০৪ সালে আবারো বৃহৎ পরিসরে মিউজিক্যাল ড্রামাটি লঞ্চ করা হয়। রহমানের পরবর্তী স্টেজ প্রজেক্ট ছিল ‘লর্ড অফ দ্য রিংস’ এর মিউজিক্যাল সংস্করণ যা ২০০৬ সালে টরেন্টোতে প্রিমিয়ার করা হয়। এই প্রজেক্টটির বাজেট ছিল প্রায় ২৫ মিলিয়ন ডলার। সমালোচকদের কাছ থেকে কখনো কখনো বাজে মন্তব্য পেলেও দর্শক-শ্রোতারা সাদরে তাদের প্রিয় শিল্পী ও সুরকারের আসনে জায়গা করে দেন রহমানকে।

মঞ্চ, বলিউডের চলচ্চিত্রে কাজ করার পাশাপাশি তিনি তার সুরের প্রভাব বিস্তার করা শুরু করেন হলিউডেও। স্পাইক লির ‘ইনসাইড ম্যান’ (২০০৬) চলচ্চিত্রের জন্য একটি সাউন্ডট্র্যাক রচনা করেন তিনি এবং ‘এলিজাবেথ: দ্য গোল্ডেন এইজ’ (২০০৭) চলচ্চিত্রে যৌথভাবে সঙ্গীত পরিচালনা করেন। সত্যিকার অর্থে ওয়েস্টার্ন জগতে রহমান ব্রেক পান ‘স্লামডগ মিলিয়নিয়ার’ চলচ্চিত্রের ‘জয় হো’ গানটির মাধ্যমে। এই গানটি তাকে অস্কার অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ড পর্যন্ত এনে দেয়। এছাড়াও বিভিন্ন সময় সেরা সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে গোল্ডেন গ্লোব, ব্রিটিশ অ্যাকাডেমি ফর ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন আর্টস (বাফটা) প্রভৃতি আন্তর্জাতিক পুরস্কারে ভূষিত হন। ২০১০ সালে তিনি ‘জয় হো’র জন্য গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড পান।

এ আর রহমানের অর্জন ও প্রাপ্তি নিয়েই হয়তো আরেকটি আর্টিকেল লেখা যাবে। সারা বিশ্বব্যাপী সঙ্গীতের জন্য তিনি পেয়েছেন অগণিত পুরস্কার ও কোটি মানুষের ভালবাসা। ১৯৯৫ সালে সঙ্গীতে অবদান রাখার জন্য মরিশাস ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড এবং মালয়েশিয়ান অ্যাওয়ার্ড পান তিনি। চার বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এবং ছয় বার তামিলনাড়ু রাজ্য ফিল্ম পুরস্কার পাওয়া রহমান দু’বার ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডও পেয়েছেন। সঙ্গীত রাজ্যে তার তুখোড় পারফরম্যান্সের জন্য তামিলনাড়ু সরকারের পক্ষ থেকে তাকে ‘কালাইমামানি’ অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। উত্তর প্রদেশ, মধ্য প্রদেশ সরকারের কাছ থেকে অ্যাওয়ার্ড পাওয়ার পাশাপাশি ২০১০ সালে ভারতীয় কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে ভারতের অত্যন্ত সম্মানজনক পুরস্কার ‘পদ্মভূষণ’ অর্জন করেন রহমান। ‘টাইম’ ম্যাগাজিনের বিশ্বের শীর্ষ ১০০ প্রভাবশালী ব্যক্তির তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন তিনি।বিশ্ব সঙ্গীতে অবদান রাখার জন্য ২০০৬ সালে ‘স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের’ পক্ষ থেকে রহমানকে একটি সম্মানসূচক অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। তাছাড়া মিডলসেক্স বিশ্ববিদ্যালয়, আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়, আন্না বিশ্ববিদ্যালয়সহ বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় তাকে অনারারি ডক্টরেট ডিগ্রি প্রদান করে। দু’বারের অস্কারজয়ী সুরকার এ আর রহমান যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের কাছ থেকে হোয়াইট হাউজে ডিনারের দাওয়াতও পেয়েছিলেন। ২০১৩ সালের নভেম্বরে তাঁর নামে মার্কহাম, ওন্টারিও, কানাডায় একটি সড়কের নামকরণ করা হয়।

ব্যক্তিগত জীবনে ৩ সন্তানের জনক এ আর রহমান বেশ সুখী একজন মানুষ। স্ত্রী সায়রা বানু এবং তিন সন্তান খাদিজা, রাহিমা ও আমিনকে নিয়ে বেশ ভাল দিন কাটে তাঁর। ‘কাপলস রিট্রিট’ সিনেমায় ‘নানা’ গানটি গেয়েছে আমিন এবং ‘এনথিরেন’ সিনেমায় ‘পুধিয়া মানিধা’ গানটি খাদিজার গাওয়া। রহমানের পরিবারের প্রায় সকল সদস্যই কমবেশি সঙ্গীত জগতের সাথে সম্পৃক্ত।শুরুতেই এ আর রহমানকে মানবপ্রেমী বলেছিলাম, এবার সময় এসেছে কথাটির যথার্থতা প্রমাণের। বেশ কিছু দাতব্য প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত রহমান ২০০৪ সালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ‘স্টপ টিবি’ কার্যক্রমের বৈশ্বিক প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেছেন। এছাড়াও ‘সেভ দ্য চিলড্রেন’ এবং ‘ইন্ডিয়ান ওশেন’ নামক ভারতভিত্তিক বেশ কিছু উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করেন তিনি। ২০০৪ সালে সুনামি আক্রান্ত মানুষের জন্য, বিভিন্ন সময় অনাথ শিশুদের সাহায্য করার জন্য কনসার্টের মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ করেন রহমান। দরিদ্র ও নিপীড়িত জনগণের সাহায্যার্থে নির্মিত ফিচার ফিল্মে বিনা পারিশ্রমিকে সঙ্গীত পরিচালনা করেন এ আর রহমান। ২০০৬ সালে চেন্নাইয়ের দরিদ্র নারীদের সাহায্য করার জন্য ‘দ্য বানায়ান’ নামে একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের থিম মিউজিক রচনা করেন তিনি। ২০০৮ সালে ‘ফ্রি হাগ ক্যাম্পেইন’ থেকে উদ্বুদ্ধ হয়ে রহমান ও শিভামানি ‘জিয়া সে জিয়া’ শীর্ষক একটি গান রচনা করে ভারতের বিভিন্ন শহরে তার প্রচারণা চালান।

এ আর রহমানের একটি ক্তি দিয়ে শুরু করেছিলাম, তাঁর একটি উক্তি দিয়েই শেষ করছি। “প্যাশনের জন্য যারা জীবন উৎসর্গ করে শেষ পর্যন্ত তারাই সাফল্যের দেখা পায়। সফল হতে হলে নম্র হও, খ্যাতি কিংবা অর্থবিত্তের মোহকে মাথায় চড়তে দিও না।” মহৎ ব্যক্তিরা তো এমনই হন!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email
Facebook
Twitter
Instagram